করমুক্ত আয়ের সীমা বাড়ানো উচিত ছিলকর-ভ্যাটের চাপ আরও বাড়বেবাজেটে নিত্যপ্রয়োজনীয় ৩০ পণ্যে কমছে করভোগ্য পণ্যে শুল্ক কমানোর পরামর্শনতুন করের বোঝা না চাপানোর অনুরোধ ডিএসই’র
No icon

ঘনঘন বিদেশ ভ্রমণে আসছে নিষেধাজ্ঞা

অর্থ পাচার, হুন্ডি ও স্বর্ণ চোরাচালান বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে সরকার। নগদ ডলার পাচার ও স্বর্ণের চোরাচালান রোধে কাজ শুরু হয়েছে। বৈধভাবে বিদেশ থেকে স্বর্ণ আমদানি কমানোর জন্যও নেওয়া হয়েছে উদ্যোগ। একটি চক্র নানা প্রক্রিয়ায় দেশ থেকে এসব পাচার করতে ঘনঘন বিদেশ যাচ্ছেন। তাদের পারিবারিক অবস্থা তেমন ভালো না, বিদেশে ব্যবসায়িক কার্যক্রমও নেই। বিদেশ থেকে আনা স্বর্ণে তাদের নিজস্ব কোনো বিনিয়োগও নেই। শক্তিশালী গডফাদার চক্রের সহায়তায় তারা ক্যারিয়ার হিসাবে ঘনঘন বিদেশে যাওয়ার নামে দেশ থেকে নগদ ডলার পাচার করছে। প্রবাসীদের কাছ থেকে রেমিট্যান্স নিয়ে স্বর্ণ কিনে দেশে আনছেন। সেই স্বর্ণ বিক্রির টাকায় ডলার কিনে ফের বিদেশ যাচ্ছে। এসব বন্ধে ঘনঘন বিদেশ সফরকারীদের তালিকা তৈরি শুরু করেছে সরকার। টাকা পাচারের উদ্দেশ্যে কেউ যাতে বিদেশ সফর করতে না পারে, সেজন্য এই চক্রের একটি তালিকা ইতোমধ্যে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলোয় পাঠানো হয়েছে।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর কাস্টমস সূত্রে জানা যায়, বিদেশে ওই প্রক্রিয়ায় অর্থ পাচারকারী, চোরাকারবারি ও হুন্ডির সঙ্গে জড়িত সন্দেহভাজন কয়েক শ ব্যক্তির বিরুদ্ধে পর্যায়ক্রমে বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে ২৫ ব্যক্তির পাসপোর্টের ফটোকপি ও ছবি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ইমিগ্রেশনে পাঠানো হয়েছে। আরও শতাধিক ব্যক্তির নাম চূড়ান্ত করেছে ইমিগ্রেশনে পাঠানোর জন্য। এভাবে একের পর এক অর্থ পাচারকারীদের তালিকা যাবে ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে। তাদের আটক বা গ্রেফতারের পর বের করা হবে গডফাদারদের নাম।জানা যায়, সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের মধ্যে গত এক বছরে কে কতবার বিদেশ গেছেন, ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে তার একটি তালিকা চেয়ে চিঠি দিয়েছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এছাড়া বিমানবন্দর কাস্টমস কর্তৃপক্ষ অর্থ পাচার ও স্বর্ণের চোরাকারবার রোধে ১২ সদস্যের ৪টি সার্ভিল্যান্স টিমও গঠন করেছে। একজন যুগ্ম কমিশনারের নেতৃত্বে চার শিফটে তারা বিমানবন্দরে দায়িত্ব পালন করবেন।ঢাকা কাস্টম হাউজের যুগ্ম কমিশনার মিনহাজ উদ্দিন বলেন, বিশ্বব্যাপী এখন ডলার সংকট চলছে। আমাদের এখানেও আছে। এসব কারণে মুদ্রা পাচারের ঘটনা বেশি ঘটছে। এসব রোধে আমরা কাজ করছি। এ ইউনিটের তৎপরতায় বিমানবন্দর হয়ে ডলার পাচার থেকে শুরু করে সব ধরনের অবৈধ কার্যক্রম বন্ধ হবে বলে আমরা আশা করছি। নতুন এসব প্রক্রিয়ায় দেশ থেকে ডলার পাচার ও স্বর্ণের চোরাচালান বন্ধ করে একদিকে রেমিট্যান্স প্রবাহ বাড়ানো হবে, অন্যদিকে দেশে নগদ ডলারের প্রবাহ বাড়ানো হবে। ধারণা করা হচ্ছে, এতে চলমান তীব্র ডলার সংকট মোকাবিলা করা সম্ভব হবে।

সাম্প্রতিক সময়ে কিছু মানুষ ঘনঘন বিদেশ যাচ্ছেন। তারা বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ও সিঙ্গাপুর যাচ্ছেন। ২/১ দিন থেকেই আবার দেশে ফিরে আসছেন। এভাবে এক মাসের মধ্যে তিন-চারবার বিদেশ সফরের নজিরও রয়েছে। তাদের বিষয়ে গোয়েন্দারা খোঁজ নিয়ে দেখেছেন, তারা খুব সাধারণ মানুষ। আর্থিক অবস্থাও ভালো না। বিদেশে ব্যবসায়িক কোনো কর্মকাণ্ডও নেই। নিজের টাকায় বিদেশ ভ্রমণ করার সক্ষমতাও নেই। মূলত তারা পাচারকারী গডফাদারদের ক্যারিয়ার হিসাবে এসব সফর করছেন। হুন্ডিবাজরা স্বর্ণ কিনে ক্যারিয়ারের মাধ্যমে দেশে পাঠায়। এখন থেকে ক্যারিয়ারের স্বর্ণ কেনার অর্থের উৎসের বিষয়ে কড়াকড়িভাবে হিসাব নেওয়া হবে। বিশেষ করে সাধারণ ব্যক্তিরা যারা ঘনঘন বিদেশ যাচ্ছেন, প্রথমে তাদের চিহ্নিত করা হবে। এরপর তাদের গডফাদারদের চিহ্নিত করে গ্রেফতারের আওতায় আনা হবে। এর ফলে হুন্ডির অর্থে স্বর্ণসহ মূল্যবান পণ্য এনে দেশে ও পার্শ্ববর্তী দেশে বিক্রি বন্ধ হবে। যথাযথভাবে এ কার্যক্রম চললে ধীরে ধীরে হুন্ডির পরিমাণ কমে আসবে এবং রেমিট্যান্স আসার হার বাড়তে থাকবে।